চলমান সংবাদ

শিক্ষার্থীদের অর্ধেক ভাড়ার দাবি, পরিবহণ নেতাদের ‘না’

-গণপরিবহণে বিশেষ করে বাসে অর্ধেক ভাড়ার দাবিতে রাস্তায় নেমেছেন শিক্ষার্থীরা৷ এ নিয়ে পরিবহণ শ্রমিকদের সঙ্গে তাদের সংঘাতও হচ্ছে৷ বাস থেকে শিক্ষার্থীকে ফেলে দেয়া এবং দুই ছাত্রীকে ধর্ষণের হুমকি দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে৷

পরিবহণ মালিকরা দাবি করেছেন, গত কয়েকদিনে কমপক্ষে ৪০টি বাস ভাংচুর করেছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা৷ শিক্ষার্থীরা অস্বীকার করে বলেছেন, পরিবহণ শ্রমিকদের খারাপ ব্যবহারের প্রতিবাদ করায় তারা শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালায়৷ শিক্ষার্থীরা বলছেন, বাস ভাড়া যেভাবে বেড়েছে তাতে ‘হাফ পাস’ বা অর্ধেক ভাড়া না হলে চরম বিপাকে পড়ছেন তারা৷ অনেক অভিভাবকই এই খরচের বাজারে হিমশিম খাচ্ছেন৷

এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) দৃশ্যত কোনো উদ্যোগ নেই৷ শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধিরা তাদের দাবি নিয়ে বিআরটিএর চেয়ারম্যানের সঙ্গে দেখা করতে চাইলেও সুযোগ দেয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ৷

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ ও দাবি

ডিজেলের দাম বাড়ার ফলে বাস ভাড়া বাড়িয়ে দেয়ার পরই শিক্ষার্থীদের অর্ধেক ভাড়ার দাবি সামনে আসে৷ এ নিয়ে শনিবার বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজের এক ছাত্রী হেনস্তার শিকার হওয়ার অভিযোগ করেন৷ ওই ছাত্রী জানান, তিনি শনিবার সকালে শনির আখড়া থেকে তার কলেজ বকশিবাজারে ‘ঠিকানা পরিবহণ’ কোম্পানির বাসে আসছিলেন৷ নতুন হিসেবে ভাড়া ১৫ টাকা, শিক্ষার্থী হিসেবে তিনি ১০ টাকা দিতে চান৷ সুপারভাইজারকে ২০ টাকার একটি নোট দিয়ে ১০ টাকা ফেরত চান৷ কিন্তু টাকা না দিয়ে এ সময় তার সঙ্গে দুর্ব্যবহার করা হয়৷ তিনি অভিযোগ করেন, ‘‘এরপর বাসটি কলেজের কাছাকাছি এলে আমাকে জোর করে বাস থেকে নামিয়ে দিয়ে পাঁচ টাকা ছুড়ে দেয়া হয়৷ আর তখন আমাকে চরম খারাপ কথা বলা হয়, যা ভাষায় প্রকাশ করতে পারছি না৷’’

‘আমাকে খারাপ কথা বলা হয়, যা ভাষায় প্রকাশ করতে পারছি না’

এর প্রতিবাদে বদরুন্নেসা কলেজের ছাত্রীরা রোববার কলেজের সামনে ওই বাসের কর্মচারীর শাস্তি দাবি করে বিক্ষোভ করেন৷

এদিকে ১৬ নভেম্বর দনিয়া কলেজের এক শিক্ষার্থীকে যাত্রাবাড়ি এলাকায় বাস থেকে ফেলে দেয়ার অভিযোগে ওইদিন ছাত্ররা সড়ক অবরোধ করে৷ ‘রজনীগন্ধা’ নামে একটি পরিবহণের বাসের কর্মচারীদের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ করেন তারা৷

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সাইদুল ইসলাম সাঈদ জানান, চারদিন আগে তাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীকে বাস থেকে ধাক্কা মেরে নামিয়ে দেয়া হয়৷ তাকে শ্লীলতাহানির হুমকিও দেয়া হয়৷ গত সপ্তাহে রামপুরায়ও একজন শিক্ষার্থীকে বাস থেকে ফেলে দেয়ার পর প্রতিবাদে অর্ধশত বাস আটক করেছিলো শিক্ষার্থীরা৷

ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘‘বাস ভাড়াসহ সব জিনিসের দাম বেড়ে গেছে৷ আমরা যারা শিক্ষার্থী তাদের সবার পরিবার স্বচ্ছল নয়৷ তাই মানবিক কারণে হলেও হাফ পাস চালু করার দাবি জানাচিছ৷ আগে এটা ছিলো৷ কিন্তু এখন কেন থাকবে না৷’’ তিনি আরো বলেন, ‘‘বিভিন্ন মহল থেকে আমাদের প্রতিশ্রুতি দেয়া হচ্ছে৷ কিন্তু এটা মুখে নয়, সরকারের পক্ষ থেকে একটি প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে এটা করা দরকার৷ না হলে শিক্ষার্থীদের সাথে পরিবহণ শ্রমিকদের এই ঝামেলা চলতেই থাকবে৷’’

সাইদুল ইসলাম সাঈদ বলেন, ‘‘শিক্ষার্থীদের জন্য হাফ পাস চলে আসছিলো৷ কিন্তু পরিবহণ মালিকরা সেটা গায়ের জোরে বন্ধ করে দিয়েছেন৷ আর পরিবহণ শ্রমিকদের প্রশিক্ষণও দরকার৷ যাতে তাদের আচার ব্যবহার ভালো হয়৷’’

উল্লেখ্য, ২০০৮ সালে শিক্ষার্থীদের ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলনের নয় দফার সবশেষটিতে ঢাকাসহ সারাদেশে হাফ ভাড়ার ব্যবস্থা করার দাবি ছিল৷

বাসমালিকদের বক্তব্য

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্যাহ বলেন, ‘‘হাফ পাসের কোনো আইন নাই৷ আমাদের ভাড়ার যে চার্ট করে দিয়েছে বিআরটিএ, সেখানেও হাফ পাস বলে কিছু নাই৷ আগে শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া নেয়া হতো৷ তবে এখন আর সম্ভব নয়৷ ঢাকায় এখন প্রচুর স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়৷ প্রতিটি বাসেই চার-পাঁচজন স্টুডেন্ট থাকে৷ তাদের কাছ থেকে অর্ধেক ভাড়া নিলে বাস মালিকরা চলবেন কীভাবে৷’’

হাফ পাসের কোনো আইন নাই: খন্দকার এনায়েত উল্যাহ

তিনি বলেন, ‘‘গত বছর যোগাযোগমন্ত্রী বিআরটিসি বাসে হাফ পাসের কথা বলেছিলেন৷ সরকার চাইলে বিআরটিসির বাস আরো বাড়িয়ে দিতে পারে৷ ছাত্রদের জন্য আলাদা বাস সার্ভিসও চালু করতে পারে৷’’

তিনি জানান,  বিষয়টি নিয়ে তারা বিআরটিএর চেয়ারম্যানের সাথেও কথা বলেছেন৷ কিন্তু তিনি কোনো সমাধান দেননি৷ তিনি অভিযোগ করেন, গত কয়েকদিনে ছাত্ররা তাদের দাবি আদায়ের নামে ৪০টি বাস ভাঙচুর করেছে৷ শিক্ষার্থীদের বাস থেকে ফেলে দেয়া এবং ধর্ষণের হুমকির অভিযোগের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘আমরা কোনো অভিযোগ পাইনি৷ অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেব৷’’

এনিয়ে বিআরটিএর চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদারকে চেষ্টা করেও টেলিফোনে পাওয়া যায়নি৷ তিনি মোবাইলে এসএমএস এরও জবাব দেননি৷

তবে বদরুন্নেসা কলেজের শিক্ষক তাজুল ইসলাম ডয়চে ভেলেকে জানান, তাদের কলেজের সামনে দিয়ে চলাচলকারী ঠিকানা ও মৌমিতা পরিবহণ হাফ পাস চালু রাখার কথা জানিয়েছে৷ ছাত্রীদের বিক্ষোভের পর পরিবহণ কোম্পানির কর্মকর্তারা তাদের কলেজে এসে তা জানিয়ে যায়৷ আর ছাত্রীদের সাথে যাতে কোনো পরিবহণ কর্মচারী খারাপ ব্যবহার না করে সে ব্যবস্থাও তারা নিবে৷

এদিকে সংশ্লিষ্ট কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ১৯৬৪ সালে প্রথম চারটি বাস দিয়ে সরকারি গণপরিবহণ চালুর সময় ছাত্রদের জন্য হাফ পাস ব্যবস্থা চালু হয়৷ সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদ ক্ষমতায় থাকাকালে সব ধরনের গণপরিবহণে ছাত্রদের কাছ থেকে অর্ধেক ভাড়া নেয়ার মৌখিক নির্দেশ দেয়া হয়৷ তারপর থেকে তা চলে আসছিলো৷ ‘সিটিং সার্ভিস’ চালু হওয়ার পর থেকে সেটি উঠে যেতে থাকে৷ তবে কিছুদিন আগেও বিভিন্ন রুটে যেখানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আছে সেখানে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অর্ধেক ভাড়া নেয়া হচ্ছিল৷ কিন্তু সর্বশেষ ভাড়া বাড়ার পর এই রেওয়াজ তুলে দেন পরিবহণ মালিকরা৷

সূত্রঃ ডয়চেভেলে